হেমন্তকাল এর বৈশিষ্ট্য - হেমন্তকাল এর দৃশ্য

প্রিয় পাঠকগণ হেমন্তকাল এর বৈশিষ্ট্য নিয়ে আজকের এই আর্টিকেলে আলোচনা করা হবে। আমরা জানি যে বাংলাদেশের ৬ টি ঋতুর রয়েছে তার মধ্যে হেমন্তকাল একটি। অনেকেই হেমন্তকাল এর বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে জানতে চাই তাদের জন্য আজকের এই আর্টিকেলে হেমন্তকাল এর বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে আলোচনা করা হবে। হেমন্তকাল এর বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে জানতে চাইলে আপনার জন্য গুরুত্বপূর্ণ একটি পোষ্ট।

আপনি যদি হেমন্তকাল এর বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে জানতে চান তাহলে অবশ্যই সম্পূর্ণ আর্টিকেল মনোযোগ সহকারে পড়ুন। তাহলে চলুন আর দেরি না করে হেমন্তকাল এর বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

পেজ সূচিপত্রঃ হেমন্তকাল এর বৈশিষ্ট্য - হেমন্তকাল এর দৃশ্য

হেমন্তকাল এর বৈশিষ্ট্য - হেমন্তকাল এর দৃশ্যঃ উপস্থাপনা

প্রিয় পাঠক আজকের এই আর্টিকেলে আমরা এখন হেমন্তকাল এর বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে আলোচনা করব। আমরা জানি যে বাংলাদেশে ছয় ঋতুর দেশ এর মধ্যে অন্যতম একটি হলো হেমন্তকাল। আপনারা যারা আমাদের এই আর্টিকেল পড়ছেন তারা নিশ্চয়ই হেমন্তকাল এর বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে জানতে চান।

আরো পড়ুনঃ পিঠা নিয়ে উক্তি - পিঠা নিয়ে কবিতা

এই আর্টিকেলে আরো জানতে পারবেন হেমন্ত কালে কি কি ফুল ফোটে? হেমন্তকাল এর কবিতা, হেমন্তকাল রচনা, হেমন্তকাল এর দৃশ্য, হেমন্ত কালের ছবি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে।

হেমন্তকাল এর বৈশিষ্ট্য

প্রিয় বন্ধুরা আজকেরে আর্টিকেল আমরা এখন হেমন্তকাল এর বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে আলোচনা করব। আমাদের মধ্যে অনেকেই আছে যারা হেমন্তকাল সম্পর্কে জানেনা তাদের জন্যই হেমন্তকাল নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব আজকের এই আর্টিকেলে।

বাংলাদেশের ছয় ঋতুর মধ্যে চতুর্থ ঋতু হলো হেমন্তকাল। হেমন্ত ঋতু কার্তিক ও অগ্রহায়ণ মাসের সমন্বয়ে গঠিত। বাংলা শরৎ ঋতুর অর্থাৎ শরতকালের পর হেমন্তকাল এর আগমন হয়। হেমন্তকালের বিভিন্ন রকমের ফুল এবং ফল হয়ে থাকে এটি হেমন্তকালের সবথেকে বড় বৈশিষ্ট্য। গ্রাম বাংলার অন্যতম একটি উৎসব নবান্ন উৎসব হেমন্তকালে হয়ে থাকে।

হেমন্তের ফসল কাটাকে কেন্দ্র করে নবান্ন উৎসবের সূচনা। ভারতের পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের গ্রাম অঞ্চলে নবান্ন উৎসব পালন করা হয়। নবান্ন উৎসব হলো নতুন আমন ধান কাটার পর সে ধান থেকে প্রস্তুত সালের প্রথম রান্না করা উপলক্ষে আয়োজিত উৎসব এটি সাধারণত অগ্রহায়ণ মাসে অনুষ্ঠিত হয় অর্থাৎ হেমন্তকালে অনুষ্ঠিত হয়।

হেমন্ত কালে কি কি ফুল ফোটে

প্রিয় বন্ধুরা এখন আমরা হেমন্ত কালে কি কি ফুল ফোটে? এ বিষয়ে সম্পর্কে আলোচনা করব। হেমন্তকালে বিভিন্ন রকমের ফুল এবং ফল ফুটে থাকে কিন্তু আমাদের মধ্যে অনেকেই হেমন্ত কালে কি কি ফুল ফোটে? এ বিষয় সম্পর্কে জানেনা। তাদের জন্য আজকের এই আর্টিকেলে আমরা এখন হেমন্ত কালে কি কি ফুল ফোটে এই বিষয় সর্ম্পকে জানাবো।

হেমন্তকালের বিভিন্ন রকমের ফুল ফুটে থাকে সেগুলোর মধ্যে অন্যতম হলোঃ

  • গন্ধরাজ
  • মল্লিকা
  • শিউলি
  • কামিনী
  • হিমঝুরি
  • দেবকাঞ্চন
  • রাজ অশোক
  • ছাতিম
  • বকফুল

হেমন্তকাল এর কবিতা

প্রিয় বন্ধুরা আজকের এই আর্টিকেলে আমরা যেহেতু হেমন্তকাল এর বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে আলোচনা করছি তাই এখন আমরা হেমন্তকাল এর কবিতা সম্পর্কে জানব। আমাদের মধ্যে অনেকেই আছে যারা হেমন্তকাল এর কবিতা সম্পর্কে জানতে চাই তাদের জন্য আজকের এই আর্টিকেলটি। তাহলে চলুন হেমন্তকাল এর কবিতা সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

আরো পড়ুনঃ পিঠা-পুলির উৎসব - পিঠা পুলির কবিতা

হেমন্তকাল এর কবিতা

হিম কুয়াশার চাদর গায়ে
হেমন্তকাল আসে
বিন্দু বিন্দু শিশির জমে
পথের নরম ঘাসে
পাকা ধানের ভরা মাঠে
ফিঙে, চড়ুই নাচে
লজ্জা পেয়ে ধানগুলো সব
হাওয়ার সাথে হাসে
কৃষাণীদের ঘরে সুখের
কি আনন্দধারা
হেমন্তকাল বাংলায় এসে
ফেলে দিলো সাড়া।

হেমন্তকাল এর কবিতা

কচি ধানের পাতার ডগায়
শিশির ভেজাই ছুইছে আবেশ,
দুর্বা ঘাসের ফোঁটায় ফোঁটায়
জল ঝরেছে শীতের আমেশ।
দুপুর বেলার থমক রোদেই
আজ গগনেই নাইরে ছিরে।
শরত কালের আকাশ খানি
ভাঙছে মেঘের দুয়ার ঘিরে।

রাতের জমা হাজার নিশি,
সরিষার খেত কলই খেতের
মাঠ পেরিয়ে আবাদ কৃষি।
নেইকো কোথায় বৃষ্টি ঝরার
ঝর ঝরিয়ে মেঘের পানি,
কোথায় থেকে চুপচুপিয়ে,
শীতল পাটির বিছানার খানি।

আজরে এলো হেমন্তকে কুঁড়েই
পাবার মাঠ পেরিয়ে।
সকাল বেলার রসের পিঠায়
খাইতে বসি হাত বাড়িয়ে।
হঠাত করে বদলে যাওয়ার
হিমেল ছোয়া বাতাস ছোটে
আনল নতুন করে ডেকেই
উৎসবের নাক গন্ধ জোটে।

সংগ্রহঃ bangla kobita.com

হেমন্তকাল রচনা

প্রিয় বন্ধুরা আমাদের অনেকেই হেমন্তকাল রচনা সম্পর্কে জানতে চেয়ে গুগলের সার্চ করে থাকি। কারণ অনেক সময় আমাদের পরীক্ষায় অথবা কোন রচনা প্রতিযোগিতায় হেমন্তকাল রচনা সম্পর্কে লিখতে হয়। তাই আজকের এই আর্টিকেলে তাদের জন্য হেমন্তকাল রচনা সম্পর্কে আলোচনা করব।

ভূমিকাঃ প্রকৃতির বৈচিত্র্য জীবনকে করে তোলে বর্ণময়, আর সেই বৈচিত্র্যের রূপ জীবনের একঘেয়েমি দূর করে নতুন রঙে রাঙিয়ে দেয়। বাঙালির সৌভাগ্য যে, আমাদের স্বদেশ বঙ্গভূমিতে প্রাকৃতিক বৈচিত্র্যের কোনো অভাব নেই। বছরের বারো মাসে ছয় ঋতুতে প্রকৃতির নতুন রূপে নতুন লীলা বাংলার মানুষের জীবনকে অনাবিল স্নিগ্ধ আনন্দে ভরিয়ে তোলে। বাংলার বুকে এই ষড়ঋতুর চতুর্থটি হলো হেমন্ত। বর্ষার পর উৎসবমুখর শরৎ কালের অবসানে গুটি গুটি পায়ে শীতের পূর্বে আগমন ঘটে হেমন্তের।

অবহেলিত হেমন্তঃবিভিন্ন কারণবশত আধুনিক সভ্যতার যুগে সব জায়গায় সমান ভাবে হেমন্তের প্রত্যক্ষ উপলব্ধি হয়না। তার প্রচ্ছন্ন অনুভূতি উপলব্ধ হয়। তবে গ্রাম বাংলার বুকে শরতের শেষ পর্ব থেকে হেমন্তের প্রত্যক্ষ অনুভূতি উপলব্ধ হয়। তবু হেমন্ত ঋতুচক্রের সবার মধ্যে অনাদৃত এবং কিছুটা অবহেলিত।

বাংলার বুকে ষড়ঋতুর বছরব্যাপী ঘুরতে থাকা চক্রের মধ্যে সবচেয়ে বেশি অবহেলিত যদি কেউ হয় তবে নিঃসন্দেহে তার নাম হেমন্ত। সময়ের প্রয়োজন অনুযায়ী মানুষের উত্তেজনাকে ক্ষণিকের স্থিতি দান করতেই হয়তো প্রকৃতির এমন ব্যবস্থা। কিন্তু উৎসবের অবসানে হেমন্তের এই অনাড়ম্বরতা এবং গাম্ভীর্য তার অবহেলারও কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

গ্রামবাংলার হেমন্তকালঃহেমন্তের প্রকৃত রূপ এই আধুনিক সভ্যতার যুগে এখন অব্দি প্রত্যক্ষভাবে দেখা যায় গ্রাম বাংলার বুকেই। হেমন্তের শিশির ভেজা ঘাস শীতের আগে ঝরে যাবার পূর্বে শেষবারের মতন সজ্জিত হয়ে ওঠা গাছের পাতা গ্রামবাংলায় যেন সকল ঋতুর মধ্যে হেমন্তকেই রানীর মুকুট পরিয়ে দেয়।

তাই বলা হয় বসন্ত যদি ঋতুরাজ হয় তবে নিশ্চিত ভাবেই হেমন্ত হলো ঋতুদের রানী। গ্রাম বাংলার বুকে ভোরের হালকা কুয়াশায় ধানক্ষেতে ধান গাছের উপর জমে থাকা বিন্দুবিন্দু শিশির যেন সমগ্র গ্রামের পরিবেশকেই এক অপরূপ মায়ায় আচ্ছন্ন করে রাখে।

হেমন্তকালের রূপঃ হেমন্তকালের বিভিন্ন রকমের ফুল ফুটে থাকে। হেমন্তকালে বিভিন্ন রকমের ফুল এবং ফল হয়। হেমন্তকাল পূর্ণ হয়ে আছে বিভিন্ন প্রকার ফল ফুল ও ফসলের আড়ম্বরে। এ প্রসঙ্গে প্রথমেই উল্লেখ করতে হয় হেমন্তকালে ফোটা বিভিন্ন প্রকার অনিন্দ্যসুন্দর ফুল গুলির কথা। শিউলি, কামিনী, গন্ধরাজ, মল্লিকা, ছাতিম, দেবকাঞ্চন, হিমঝুরি, রাজঅশোক ইত্যাদি ফুলের মাধুর্যে সমগ্র হেমন্তকালের প্রকৃতি যেন মাতোয়ারা হয়ে থাকে।

ফুল ছাড়া মানুষের জীবন যেন রুক্ষ প্রাণহীন। হেমন্তকাল মানুষের জীবনকে তার ফুলের ডালি উপুর করে দিয়ে সেই রুক্ষতায় নিয়ে আসে পেলবতার ছোঁয়া। অন্যদিকে হেমন্তের পরিবেশ বিভিন্ন প্রকার ফসল চাষের জন্য বিশেষভাবে অনুকুল। এই ঋতুতেই বিশেষভাবে বিকাশ লাভ করে বাঙালির প্রিয় আমন ধান।

হেমন্তের নবান্ন উৎসবঃহেমন্তকাল হল বিভিন্ন রকমের ধান ওঠার সময়। এই সময়ে চাষিরা অনেক আনন্দিত হয়ে থাকে কারণ তাদের ঘরের বিভিন্ন রকমের নতুন চাল আসে। সাধারণত সেজন্যই তারা আনন্দিত হয় এবং নবান্ন উৎসব পালন করে থাকে নতুন ধানের চাল দিয়ে। গ্রাম অঞ্চলে এ ধরনের উৎসব বেশি দেখা যায়।

আরো পড়ুনঃ শীতের পিঠা নিয়ে উক্তি 2023 - শীতের পিঠা নিয়ে কবিতা

ঋতুতেই চাষির ঘরে ওঠে নতুন ধান আর সেই আনন্দ উপলক্ষে গ্রামবাংলা মেতে ওঠে নবান্ন উৎসবে। উৎসবের দিন গুলিকে গ্রামের বাঙালিরা উদযাপন করে অভিনব উপায়ে। গ্রামে গ্রামে শুরু হয় পিঠাপুলির আয়োজন।

উপসংহারঃ হেমন্তকাল বিভিন্ন রকমের নতুন ফুল ফল ফোটার সময়। হেমন্ত কালের আবহাওয়া তেমনভাবে এখন আর লক্ষ্য করা যায় না কারণ হচ্ছে পৃথিবীর বায়ুদূষণ অবস্থা। পৃথিবীর এইরকম রূপের কারণে হেমন্তকাল এর আসল রূপ হারিয়ে যেতে চলেছে। কিন্তু গ্রাম অঞ্চলে এখনো এ ধরনের প্রকৃতির রূপ দেখা যায়।

সংগ্রহঃ banglarochona

হেমন্তকাল এর দৃশ্য - হেমন্ত কালের ছবি

প্রিয় বন্ধুরা আমরা এখন হেমন্তকাল এর দৃশ্য নিয়ে আলোচনা করব। আপনারা যারা আমাদের এই আর্টিকেল পড়ছেন তারা নিশ্চয়ই হেমন্ত কালের ছবি সম্পর্কে জানতে চেয়েছেন। তাদের জন্য বর্তমানে আমরা এখন হেমন্তকাল এর দৃশ্য তুলে ধরব যেখান থেকে আপনি হেমন্ত কালের ছবি দেখতে পাবেন। নিচে হেমন্তকাল এর দৃশ্য দেওয়া হল।

হেমন্তকাল এর বৈশিষ্ট্য - হেমন্তকাল এর দৃশ্যঃ শেষ কথা

হেমন্তকাল এর বৈশিষ্ট্য, হেমন্তকাল এর দৃশ্য, হেমন্তকাল রচনা, হেমন্তকাল এর কবিতা, হেমন্ত কালে কি কি ফুল ফোটে? এই বিষয়গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। আশাকরি আপনারাও বিষয়গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পেরেছেন। এতক্ষন আমাদের সঙ্গে থাকার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ। এরকমই আরো পড়তে নিয়মিত আমাদের ফলো করুন।১৬৮৩০

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url